Staff Guide

আবেদনের পূর্বে নির্দেশিকা

যদি তাই হয় তাহলে এই কোম্পানীর ইনকাম অপরচুনিটি আপনার জন্য। আপনি নিশ্চিন্তে আবেদন করতে পারেন।
তাহলে এই কোম্পানি থেকে ইনকামের সুযোগ আপাতত আপনার জন্য নয়। দয়া করে আপনি আবেদন করবেন না।

আবেদন পরবর্তী নির্দেশিকা

আবেদন পত্র সাবমিট করার পর আপনি আমাদের ফেইচবুক মেসেঞ্জারে এড হয়ে বা মোবাইল করে আপনার অনলাইন ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড জেনে নিবেন।(ফেইচবুক লিংক) মোবাইল নং = 01810168803 । অন্য যে পেশায় আছেন সেটি করতে থাকবেন।কারন এখানে আয়ের সুযোগ হলেও আপনি অন্য কাজের পাশাপাশি এটি করতে পারবেন। করোনার প্রভাবের জন্য ভাইভা বা অন্যন্য বিষয়াবলী হবে অনলাইনে, এতে করে আপনার মুল্যবান সময় এবং যাতায়াত ভাড়া/টাকা বেছে যাবে। ভাইভা বা আপনার উর্দ্ধ তন কর্মী দ্বারা আপনি সিলেক্ট হবার পর  2/3 দিনের মধ্যে আপনাকে মেসেজ করে বা ফোন করে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড  জানানো হবে। এবং আপনি যে পোষ্টের জন্যই সিলেক্ট হন না কেন আপনাকে 500 টাকা অনলাইন সার্ভিস চার্জ বাবদ জমা দিতে হবে । টাকা কোম্পানির ব্যাংক একাউন্ট/বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্টে জমা দিবেন এবং ফোন করে নিশ্চিত হবেন।আমাদের কোন কর্মীর সাথে লেনদেন করলে নিজ দায়িত্বে করবেন।কর্মীর সাথে লেনদেন সংক্রান্ত কোন সমস্যায় কোম্পানি দায়ী থাকবেনা।

শুধু মাত্র ট্রেইনার পদবীধারীরা নিয়োগের জন্য সিলেক্ট হলে অতিরিক্ত ১৫০০০ টাকা জমা দিতে হবে তিন মাস অফিসিয়াল প্রশিক্ষণ ফি বাবদ।

আইডি সংগ্রহ/নিয়োগ পরবর্তী নির্দেশিকা

আপনার কাংখিত পোষ্টের জন্য নিয়োগ/আইডি পাসওয়ার্ড পাওয়ার পর আপনি লগইন করবেন।কিভাবে লগইন করবেন তা এখানে ক্লিক করে ভিডিও দেখে শিখে নিতে পারেন।এখানে ক্লিক করুন। এই আইডি একাউন্ট থেকে আপনার সকল কার্যাবলী, রিপূর্ট প্রদান,অফিস আদেশ, আপনার অধিনস্থ কমীর্দের তালিকা,পণ্যের তালিকা, আপনার টার্গেট, এমনকি আপনার বেতন/কমিশন সব  জানতে পারবেন। আপনি যেখানেই অবস্থান করেন না কেন বাড়িতে বা অন্য কোথাও এই আইডির মাধ্যমেই আপনি কাজ করতে পারবেন। কোম্পানির ট্রেনিংগুলোও এই আইডির মাধ্যমে করতে হবে। আপনি এসআর হলে আপনার গ্রাহকদের লিস্টও এই আইডিতেই  করে রাখবেন। তার পর আপনার আইডিতে লগইন করে আপনার নাম, এড্রেস, ইমেইল এড্রেস, পাসওয়ার্ড  ইত্যাদি পরিবর্তন/ইডিট করবেন এবং আপনার এনআইডি কার্ড, ছবি  ও বায়োডাটা আপলোড করবেন।আপনার আ্ইডিতে অন্যন্য ফাংশনগুলো ভাল করে স্টাডি করবেন। তারপর আপনার উর্দ্ধ তন কর্ম কর্তার সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় লোড/টাকা নিয়ে জয়েন করানো বা কাজ শুরু করবেন। এই জন্য বলা হয়ে থাকে এটা একটা ব্যাতিক্রমধমী আধুনিক ইনকাম সোর্স। তবে মাঝে মাঝে অফিস আদেশ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় নির্দেশানুসারে কাজ করতে হবে। আরও বিস্তারিত অনলাইন ট্রেনিং এর মাধ্যমে জানতে পারবেন।

শুধুমাত্র ট্রেইনার পদবীধারীরা নিয়োগের জন্য সিলেক্ট হলে অতিরিক্ত ১৫০০০ টাকা জমা দিতে হবে তিন মাস অফিসিয়াল প্রশিক্ষণ ফি বাবদ।

প্রশ্ন জিজ্ঞাসা ও উত্তর

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার সাথে সাথে অনেকেই ফ্রি আবেদন করে যাদের চাকরির প্রয়োজন নেই। যাস্ট কিউরিসিটির জন্য (এটা পরিক্ষিত)। তাই এখানেই আমাদের অনেকটা বাচাই হয়ে যায় কারা কারা কাজ করতে ইচ্ছুক। আর এদের মধ্য থেকে আমরা বাচাই করব যারা কোম্পানিতে নিবেদিত ভাবে কাজ করবে। আর ১০০ টাকা কোন জামানত নয় এটা পরবতীর্তে আমরা ৪র্থ বেতনের সাথে এডজাস্ট করে ফেরত দিয়ে দিব। সুতরাং আপনি ১০০ টাকা নির্ধারিত ব্যাংকে বা বিকাশে নিশ্চিন্তে জমা দিতে পারেন। ধন্যবাদ

এখন আমরা আপাতত এই টাকা নিচ্ছি না আপনাকে জমা দিতে হবে না

জি, একটি কোম্পানি গঠন করার সময় যে সব লাইসেন্স নিতে হয় আরজেএসসি থেকে তা নেওয়া আছে। ট্রেড লাইসেন্স নেওয়া আছে, টিন সার্টিফিকেট করা আছে। কোম্পানির কমীর্দের কাজ, বেতন ভাতা, লেনদেন ইত্যাদি কোম্পানির ইন্টানার্ল নিয়মানুযায়ী পরিচালিত হয়। কোন রকম কারন ছাড়া ১ টাকাও কারও কাছ থেকে নেওয়ার পারমিশন সরকার দেবে না। আমরাও করোনা কালীন বা করোনা পরবতীর্ সময়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া ডিজিটালাইজড করার জন্য, বাছাই প্রকৃয়া সুন্দর ভাবে প্রসেস করার জন্য অনলাইনেই ভাইভা নেওয়ার জন্য এবং আগ্রহীদের খুজে পেতে এই সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছি। বলাবাহুল্য এই ১০০ টাকা আমরা আবার সিস্টেম ওয়াইজ রিটার্ণ দিয়ে দেব। তারপরও যদি আপনার কোন আপত্তি বা সন্দেহ থাকে তাহলে আপনাকে আবেদন না করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। ধন্যবাদ

এখন আমরা আপাতত এই টাকা নিচ্ছি না আপনাকে জমা দিতে হবে না

না এটা কোন সরকারী প্রতিষ্ঠান নয়। তবে বাংলাদেশ জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টার(জেডিপিসি) এর অনুকরনে পরিচালিত। আর বাংলাদেশ সরকারের পাট মন্ত্রনালয়ের পাট পণ্যের প্রতি আগ্রহকে তরান্বিত করতে এবং বাংলাদেশের পরিবেশ রক্ষায় ট্রি প্লান্টেশনকে বাড়াতে এবং সাধারন মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সাশ্রয়ী মূল্যে সহজে পেতে এই কোম্পানী কাজ করে যাচ্ছে। যা এক দিকে যেমন বেকার সমস্যার সমাধান করে দেশের অর্থনৈতিক উন্নতিকে তরান্বিত করবে তেমনি একজন ব্যাক্তির ব্যাক্তিগত আয়ের পথ সুগম করবে। ধন্যবাদ

কোম্পানি তিনটি প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করছে— ১. পাট পণ্য, ২. পামঅয়েল ট্রি, ৩. নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। আপনি কোন পোস্টের জন্য আবেদন করেছেন সেটার উপর ভিত্তি করে, ভাইভার পরে, আপনি নিয়োগের জন্য মনোনিত হলে এবং নিয়োগ পত্র পাওয়ার পর কোম্পানী স্পেশাল ট্রেনিংএর মাধ্যমে আপনার উপর অর্পিত দায়িত্ব বুঝিয়ে দেবে। এখন অন্য যে কাজ করতেছেন সেটাই করতে থাকুন। ধন্যবাদ

কোম্পানি তিনটি প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করছে— ১. পাট পণ্য, ২. পামঅয়েল টি প্ল্যান্টেশন, ৩. নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিপনন। পাট থেকে পাট জাত পণ্য তৈরী করে কিভাবে একজন ব্যাক্তি স্বাবলম্বী হবে তা প্রশিক্ষনের মাধ্যমে শিখিয়ে দেওয়া হবে। পাম অয়েল ট্রি এর উপকারিতা কি, কিভাবে সারা বছরের জন্য ভোজ্য তেল পাবে এবং কত টাকা দিয়ে কয়টি গাছ ক্রয় করে রোপন করলে একটি পরিবার স্বয়ং সম্পূর্ণ হবে এই সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কাজ করছে এই প্রজেক্টে। একজন ব্যাক্তি কিভাবে বাজার মূল্যের চেয়েও কম মূল্যে আমাদের কোম্পানি থেকে পণ্য পেতে পারে এবং আরও বিভিন্ন সুযোগ সুবিধাগুলো কিভাবে পাবে, কিভাবে অনলাইনে আইডি একাউন্ট করবে ইত্যাদি বিষয়ের উপর কাজ করছে এই প্রজেক্ট। আরও বিস্তারিত নিয়োগ প্রাপ্তরাই জানতে পারবেন। ধন্যবাদ

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা ও দক্ষতার আলোকে আমাদের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিটি ভাল করে পড়ে দেখুন। তারপর অপেক্ষাকৃত ছোট পোস্টের জন্য আবেদন করুন, কেননা দক্ষতার উপর ভিত্তি করে প্রমোশনের ব্যবস্থা আছে। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখুন। ধন্যবাদ

আবেদন করতে পারবেন সমস্যা নাই, কিন্তু এতে করে আপনারই কাজ করতে অসুবিধা হবে। এলাকা ভিত্তিক কাজ করলে বাসা ভাড়া বেছে যায়, পরিচিত মহল থাকে, স্বাধীনভাবে কাজ করা যায়, রাস্তাঘাট চেনার ক্ষেত্রে সুবিধা হয় যা অন্য এলাকায় করতে গেলে মুশকিল। তাছাড়া নিজস্ব এলাকার জন্য আবেদনকারিরা অগ্রাধীকার পাবে। এই ক্ষেত্রে আপনার ঝড়ে পরার সম্ভাবনা থেকে যায়। এই জন্য নিজস্ব এলাকার জন্য আবেদন করাটাই বেটার। ধন্যবাদ

জি হ্যাঁ, কোম্পানির প্রয়োজনীয় লাইসেন্স রয়েছে। আপনাদের অবগতির জন্য আমরা অয়েবসাইটে ভিজিবল করেছি। এখানে ক্লিক করে আমাদের রেজিষ্টার অব জয়েন্ট স্টক সার্টিফিকেট, ট্রেড লাইসেন্স, টিন লাইসেন্স দেখতে পারেন। আমাদের সরকারী ব্যাংক, সোনালী ব্যাংকেও একটি একাউন্ট রয়েছে। ধন্যবাদ

কোম্পানীর অনেকগুলো ভিশন মিশন রয়েছে, তার মধ্যে বিশেষ কয়েকটি হল কর্মক্ষেত্র তৈরী করে বেকার সমস্যার কিছুটা হলেও হ্রাস করে সরকারকে সহযোগীতা করা। পাট পণ্যের বিদেশে রপ্তানী করে পাটের পুরাতন ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনা।ওয়ার্ড পর্যায়ে উদ্যোক্তা তৈরী করা। উদ্যোক্তাদের সহজ শর্তে রিন প্রদান করা। পাম অয়েল ট্রি রোপন করে পরিবেশ রক্ষা করা এবং ব্যাক্তিকে অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী করা। ধন্যবাদ

আসলে এটা কোন দাতা প্রতিষ্ঠান নয় যে শুধু বেতন দিয়ে যাবে কোন কাজ ছাড়া। আপনি জানেন বাংলাদেশের জনগন কাজ চায় এবং কাজ করতে পারে বাট তেমন সুযোগ সুবিধা না থাকায় অনেক লোক বেকার অবস্থায় আছে। আমরা প্রজেক্ট ওয়াইজ লোক নিয়োগ দিয়ে কিভাবে কি কাজ করতে হবে তা বুঝিয়ে দিব এবং তাকে কিছু টার্গেট দেব। দেখা যাচ্ছে একটু চেষ্টা করলেই টার্গেটপুরন করেও বেতনের চেয়ে বেশি কমিশনও তুলতে পারবেন একজন কর্মী। ধন্যবাদ

জি হ্যাঁ, আপনি অন্য কাজের পাশাপাশি করতে পারবেন। কারন এখানে আপনার টার্গেট থাকবে। আপনার টার্গেট পুরন হওয়াটাই হল মেইন কাজ। আপনি যে কাজই করেন না কেন সমস্যা নাই। তারপরও কোম্পানির বিশেষ বিশেষ নির্দেমাবলীর জন্য আপনার একটু সমস্যা হতে পারে সেই ক্ষেত্রে আপনি আপনার উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে পরামর্শ করে করতে পারবেন। ধন্যবাদ

যদি আপনি ভাইভায় সিলেক্ট না হন তাহলে আপনাকে অগ্রাধীকার বলে আমাদের কোম্পানির আরেকটি অনলাইন প্রজেক্ট এফিলিয়েট মার্কেটিংয়ে অটোমেটিকভাবে যুক্ত করে দেওয়া হবে। সেখানে অনেক সুযোগ সুবিধা রয়েছে। আপনি কি কি সুযোগ সুবিধা পাবেন তা পরবতীর্তে বিস্তারিত জানানো হবে। ধন্যবাদ

এখন আমরা আপাতত এই টাকা নিচ্ছি না আপনাকে জমা দিতে হবে না

জি হ্যাঁ, ভাইভায় সিলেক্ট হলে আপনি ৪র্থ মাসের বেতন পাওয়ার সময় আপনার বেতনের সাথে ১০০ টাকা সমন্বয় করে দেওয়া হবে। ধন্যবাদ

এখন আমরা আপাতত এই টাকা নিচ্ছি না আপনাকে জমা দিতে হবে না

আমরা প্রত্যেকটি ইউনিয়নে একটি করে সার্ভিস পয়েন্ট দেব। যা একজন ইউনিয়ন কমীর্ এবং একজন থানা কর্মীর কাজের আওতায় পরবে। সেখান থেকে আমাদের ওয়ার্ড কর্মীরা পণ্য সংগ্রহ করে গ্রাহকের কাছে পৌছে দিবে। ধন্যবাদ

কোম্পানির ইন্টারনাল পলিসি অনুযায়ী আমরা প্রত্যেক কর্মীদেরকে কোম্পানির নিজস্ব অয়েবসাইটের মাধ্যমে পরিচালিত করতে চাই। এতেকরে কোম্পনির প্রতিদিন হাজার হাজার ঘন্টা সাশ্রয় হবে।যা একটি কোম্পানির উন্নতির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন। সেই সাথে কর্মীদের কাজ করতে গিয়ে বছরে হাজার হাজার টাকা সাশ্রয় হবে যা কর্মীদের আর্থিক সচ্চলতার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।এই জন্য যাদের চাকুরী হবে শুধু তারাই প্রতিবছর 500 টাকা অনলাইন সার্ভিস চার্জ প্রদান করবেন।যদি কেউ টাকা না দিতে চান তাহলে আমাদের হেড অফিসে এসে সকল কাজ সম্পন্ন করবেন এবং প্রতি সাপ্তাহে হেড অফিসে এসে রিপূর্ট প্রদান করবেন।

জিনা, প্রতারনা নয়।কারন এটা চাকুরী করার শর্ত নয়।কেউ চাইলে 500 টাকা নাও দিতে পারে। বরং এই টাকা দিয়ে কোম্পানির যাবতীয় সাপোর্ট অনলাইনের মাধ্যমে নিতে পারবেন।না হলে প্রতি সাপ্তাহে কাজের রিপুর্ট জমা দিতে হেড অফিসে আসতে হবে যা আরও বেশি ব্যয়বহুল হবে।কর্মীদের ব্যয় কমাতেই আমাদের এই উদ্যোগ। আর আমরা নির্দিষ্ট পোষ্টে নির্দিষ্ট সংখ্যক লোক নিয়োগ দেব চাইলেই আমজনতার কাছ থেকে টাকা নিতে পারবনা। যদি নেই তাহলে সেটা হবে প্রতারনা।সুতরাং চাকুরীর জন্য প্রাইমারী সিলেক্ট হলে অনলাইন সার্ভিস চার্জ 500 টাকা কোনভাবেই প্রতারনা মধ্যে পরে না। তারপরও যদি কেউ মনে করেন প্রতারনা তাহলে আমাদের অফিসে এসে দয়া করে বুঝিয়ে দিবেন।আমরা আপনার পরামর্শ সাদরে গ্রহন করব।

না, চাকুরী করার শর্ত 500 টাকা নয়। বরং চাকুরী হলে 500 টাকা দিয়ে অনলাইন সাপোর্ট নিবেন। যা কোম্পানির ইন্টারনাল নীতিমালার অন্তর্ভুক্ত। আর এই 500 টাকা বছরে এক বার জমা দিতে হবে।500 টাকা দিয়েই চাকুরী নিতে পারবেন না বরং প্রাইমারী সিলেক্ট হলে পরেই 500 টাকা দিতে হবে। 500 টাকা দিয়ে চাকুরী নেওয়া অনেকটা ঘুষ,দুর্নিতি বা প্রতারনার পর্যায়ে পরে।তাই টাকা দিয়ে চাকুরী নয় বরং চাকুরী হলে 500 টাকা দিয়ে অনলাইনে সুযোগ নেওয়া।

আমরা টাকা নেব শুধু মাত্র অয়েবসাইট সার্ভিস বাবদ। কেউ যদি টাকা জমা দেওয়ার পরও ভাবে চাকুরী করবে না তাহলে তার টাকা রিটার্ণ দেওয়া হবে।এ ক্ষেত্রে টাকা জমা দেওয়ার 15 দিনের মধ্যে কোম্পানিকে অবহিত করতে হবে। ১৫ দিনের পর হলে, বা চাকুরীর জন্য আইডি কার্ড , নিয়োগ পত্র ও অনলাইন আইডি ক্রিয়েট হয়ে গেলে পরে যদি কেউ চাকুরী করতে না চায় এবং টাকা রিটার্ণ চায় তাহলে তা আর ফেরত দেওয়া হবে না। আমরা 15 দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করব। কারন সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের জন্য ১৫ দিন যতেস্ট নয় ? তাছাড়া ১৫ দিন পরে উক্ত কর্মীর পিছনে কোম্পানির  অফিসিয়ালি অনেক কাজ সম্পন্ন হয়ে যায় এতে অনেক টাকা বিনিয়োগও হয়, সুতরাং পরেও যদি কেউ টাকা চায় তাহলে তা বিবেক বর্জিত। এই বিষয়ে  সকলের সহযোগীতা কাম্য।আমরা চাই এখানে কেউ ১ টি টাকাও যেন না ঠকে। তাই আমরা 15 দিনের মধ্যে টাকা ফেরত দেওয়ার অফশন রেখেছি।ধন্যবাদ।(ব্যাংকে টাকা জমার রিসিট জমা দেওয়া বাধ্যতামুলক)

নিয়োগ সম্পন্ন হলে আপনাকে আরও বেশি জানানোই হবে কোম্পানির প্রথম দায়িত্ব। এই জন্য আপনাকে অনলাইন এবং অফ লাইনে কিছু ট্রেনিং করাবে কোম্পানি। এর পরও যদি আপনার এখনি কিউরিসিটি জাগে তাহলে আমাদের অফিসে এসে সরাসরি বিস্তারিত জানতে পারবেন। আমাদের অফিস ঠিকানা— হাউজ ৯(৩য়তলা) রোড ২০, সেক্টর ১০, উত্তরা, ঢাকা। মোবাইলঃ ০১৮৯২৭০১৯৯৩ । ধন্যবাদ

কোন পদবীর কি কাজ তার প্রাথমিক ধারনা

এসআর (SR)

এক জন এসআর এর মানুষের সংগে সুন্দরভাবে কথা বলা ও সু- সম্পর্ক বজায় রাখার গুনাবলী সম্পন্ন হতে হবে। তার পরিচিত সার্কেলের মধ্যে থেকে ২০০ জন ব্যাক্তিকে কোম্পানির ফ্রি কাষ্টমার তৈরী করতে হবে। এই ২০০ জন ব্যাক্তির কাছে কোম্পানী বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সুযোগ সুবিধাগুলি পৌছাতে হবে। পাট পণ্যের ট্রেনিং, পাম অয়ের ট্রি এবং নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ও সাস্থ্য সেবা এই ২০০ জন লোকের কাছেই পৌছাতে হবে। এটাই হল একজন এসআরের প্রথম এবং শেষ কাজ।সেই সাথে কিছু পেইড কাস্টমার তথা ১০০ টাকা করে ফরম বিক্রি বা অনলাইন রেজিঃ করাতে হবে যারা আমাদের পাট পণ্যের ট্রেনিং ও অন্যন্য সকল সুযোগ সুবিধা নিবে । যদিও ট্রেনিং ফি ৫০০০ টাকা তথাপি ১০০ টাকা দিয়ে আগে রেজিঃ করাবে পরে ট্রেনিং করার সময় বাকি টাকা কোম্পানির পরবর্তী  নির্দেশনা অনুযায়ী পরিশোধ করবে।এই কাজটুকু কোম্পানি থেকে ট্রেনিং নিয়ে সুন্দরভাবে একবার করতে পারলেই হল। পরবর্তীতে আর তেমন কোন কাজ নেই। কিন্তু বেতন প্রতি মাসে পাবেই। সারা জীবন। তাই প্রথম দিকে ১/২ মাস একটু পরিশ্রম করতে পারলে তার জন্য হবে অত্যন্ত সুখের একটি জব।

ইউএস (US)

প্রথমেই তার অধিনস্থ ৯ জন এসআর এর টীম গঠন করতে হবে এবং ১টি সার্ভিস পয়েন্ট নির্দিষ্ট করতে হবে। এক জন ইউএসকে তার অধিনস্ত এসআরদের টার্গেটপূরনে সহায়তা করতে হবে। এসআরদের সাপ্তাহিক কাজের রিপুর্ট হেড অফিস বা উদ্ধতন কর্মকর্তার কাছে সাবমিট করতে হবে।নিজের কর্মস্থল ইউনিয়নে একজন ডিলার নিযুক্ত করতে হবে। মূলত অধিনস্থ এসআরদের মোট মাসিক টার্গেটই হল ইউএস এর টার্গেট। কখনও ফোন করে আবার কখনও স্বশরীরে গিয়ে এসআরদের কাজের তদারকি করতে হবে। কাজের সময় এবং কর্মকৌশল উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে, অন্যন্য কাজের ফাঁকে বা এই কাজের ফাঁকে অন্য কাজ করেও নিজের মত করে করতে পারবে। আরও বিস্তারিত নিয়োগ পাওয়ার পরে ট্রেনিংএ শিখিয়ে দেওয়া হবে।

টিএম (TM)

প্রথমেই তার অধিনস্থ টীম গঠন করতে হবে এবং ৭ সার্ভিস পয়েন্ট নির্দিষ্ট করতে হবে। এক জন টিএমকে তার অধিনস্ত  ইউএসদের টার্গেটপূরনে সহায়তা করতে হবে। ইউ এসদের সাপ্তাহিক কাজের রিপুর্ট হেড অফিস বা উদ্ধতন কর্মকর্তার কাছে সাবমিট করতে হবে। মূলত অধিনস্থ ইউএসদের মোট মাসিক টার্গেটই হল টিএম এর টার্গেট। কখনও ফোন করে আবার কখনও স্বশরীরে গিয়ে ইউএসদের কাজের তদারকি করতে হবে। কাজের সময় এবং কৌশল উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে, অন্যন্য কাজের ফাকে বা এই কাজের ফাকে অন্য কাজ করে নিজের মত করে করতে পারবে। আরও বিস্তারিত নিয়োগ পাওয়ার পরে ট্রেনিংএ শিখিয়ে দেওয়া হবে।

ডিএম (DM)

এক জন ডিএমকে তার অধিনস্ত টিএমদের টার্গেট পূরনে সহায়তা করতে হবে। টিএমদের সাপ্তাহিক কাজের রিপুর্ট হেড অফিস বা উদ্ধতন কর্মকর্তার কাছে সাবমিট করতে হবে। মূলত অধিনস্থ টিএমদের মোট মাসিক টার্গেটই হল ডিএম এর টার্গেট। কখনও ফোন করে আবার কখনও স্বশরীরে গিয়ে টিএমদের কাজের তদারকি করতে হবে। কাজের সময় এবং কৌশল উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে, অন্যন্য কাজের ফাকে বা এই কাজের ফাকে অন্য কাজ করে নিজের মত করে করতে পারবে। কোম্পানির অফিস আদেশ অনুযায়ী অন্যন্য কাজ করতে হবে যার বিস্তারিত নিয়োগ পাওয়ার পরে ট্রেনিংএ শিখিয়ে দেওয়া হবে।

জেডএম (ZM)

এক জন জেডএমকে তার অধিনস্ত ডিএমদের টার্গেট পূরনে সহায়তা করতে হবে। ডিএমদের সাপ্তাহিক কাজের রিপুর্ট হেড অফিস বা উদ্ধতন কর্মকর্তার কাছে সাবমিট করতে হবে। মূলত অধিনস্থ ডিএমদের মোট মাসিক টার্গেটই হল জেডএম এর টার্গেট। কখনও ফোন করে আবার কখনও স্বশরীরে গিয়ে ডিএমদের কাজের তদারকি করতে হবে। কাজের সময় এবং কৌশল উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে, অন্যন্য কাজের ফাকে বা এই কাজের ফাকে অন্য কাজ করে নিজের মত করে করতে পারবে। কোম্পানির অফিস আদেশ অনুযায়ী অন্যন্য কাজ করতে হবে যার বিস্তারিত নিয়োগ পাওয়ার পরে ট্রেনিংএ শিখিয়ে দেওয়া হবে। নিজস্ব ক্রিয়েটিভ কৌশল এপ্লাই করে কোম্পানির উন্নতির লক্ষ্যে কাজ করতে হবে।

এনএম (NM)

এক জন এনএমকে তার অধিনস্ত বিভাগের টার্গেট পূরনে কাজ করতে হবে। সাপ্তাহিক কাজের রিপুর্ট হেড অফিস বা উদ্ধতন কর্মকর্তার কাছে সাবমিট করতে হবে। কখনও ফোন করে আবার কখনও স্বশরীরে গিয়ে অধিনস্তদের কাজের তদারকি করতে হবে। কাজের সময় এবং কৌশল উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে, অন্যন্য কাজের ফাকে বা এই কাজের ফাকে অন্য কাজ করে নিজের মত করে করতে পারবে। একটি ভাইটাল পোস্ট হিসাবে কোম্পানির অফিস আদেশ অনুযায়ী অন্যন্য কাজ করতে হবে যার বিস্তারিত নিয়োগ পাওয়ার পরে ট্রেনিংএ শিখিয়ে দেওয়া হবে। নিজস্ব ক্রিয়েটিভ কৌশল এপ্লাই করে কোম্পানির উন্নতির লক্ষ্যে কাজ করতে হবে।

জিএম (GM)

একটি ভাইটাল পোস্ট হিসাবে অভিজ্ঞদের অগ্রাধীকার দেওয়া হবে। কোম্পানির মার্কেটিং বিভাগকে শক্তিশালী করার জন্য বিভিন্ন পরামর্শ এবং সেই অনুযায়ী কাজ করতে হবে। নিয়োগ পাওয়ার পরে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

ট্রেইনার

একজন ট্রেইনারকে তার পারদর্শীতানুসারে কাজ করতে হবে। কেউ কেউ মার্কের্টিং এর ট্রেনিং কেউ কেউ হস্ত শিল্পের ট্রেনিং, কেউ কেউ পাট পণ্যের ট্রেনিং, কেউ কেউ আইটি ট্রেনিং ইত্যাদি করাতে হবে। কাজের রিপুর্টিং, সাধারন একাউন্টস এবং অডিট ও করতে হবে। ট্রেনিং করানোর সুবাদে অফিস আদেশ অনুসারে যে কোন জায়গায় যেতে হবে। ট্রেইনারকে প্রথম তিন মাস 15000 টাকা দিয়ে অফিস থেকে ট্রেনিং নিতে হবে।

নিয়োগ সংক্রান্ত বিবরনঃ অনলাইনে আবেদন করার পরে অফিস থেকে যাচাইবাচাই করা হবে (কাউকে ভিডিও কলের মাধ্যমে)। তার পর যোগ্য প্রার্থীকে মোবাইলে মেসেজের মাধ্যমে জানানো হবে। মেসেজ পেলে প্রথমেই 500 টাকা কোম্পানি নিধারিত ব্যংক বা বিকাশ এজেন্ট নাম্বারে প্রেরন করতে হবে অনলাইন সার্ভিস চার্জ বাবদ । তারপর কোম্পানি কর্তৃক ট্রেনিং এর জন্য কোম্পানির কর্পোরেট অফিসে ডাকা হবে। তিন মাস পর্যন্ত অনেকগুলো ট্রেনিং করে নিজেকে পরিপূর্ণ করতে হবে। তিন মাস পর থেকে চাকরী কনফার্ম করা হবে এবং যথারীতি দায়িত্ব পালন করতে হবে। প্রশিক্ষনের তিন মাস কোন বেতন দেওয়া হবে না বরং 15000 টাকা প্রার্থীর প্রদান করতে হবে শিখার জন্য। কারন এটা একটা মেগা প্রজেক্ট। তারপর সারা জিবনের জন্য আর কোন টাকা দিতে হবে না এবং চাকুরীর নিশ্চয়তা রয়েছে।

আরও বিস্তারিত জানার প্রয়োজন হলে ফোন করেনঃ ০১৮১০১৬৮৮০০ নাম্বারে। অথবা সরাসরি অফিসে আসতে পারেন।হাউজ ৯ রোড ২০ সেক্টর ১০ উত্তরা ঢাকা। আবেদন পত্র সাবমিট করুন এবং কোম্পানির ফেইচবুক মেসেঞ্জারে যুক্ত থাকুন ভিডিও কলে ভাইভা দেওয়ার জন্য।ধন্যবাদ।

Scroll to Top